শনিবার, ২ ডিসেম্বর ২০২৩
১৭ অগ্রহায়ণ ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দুই টেস্ট খেলতে কাল ঢাকা আসছে নিউজিল্যান্ড


জনবাণী ডেস্ক
🕐 প্রকাশ: ১২:০৬ পিএম, ২০শে নভেম্বর ২০২৩

Janobani Bangla NewsPaper

ফাইল ছবি

বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের সিরিজ খেলতে আগামীকাল মঙ্গলবার রাতে বাংলাদেশে আসছে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দল। সিলেট আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম ও মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে দুই টেস্টের সিরিজ খেলবে তারা। 


সদ্য সমাপ্ত বিশ্বকাপের পর নিউজিল্যান্ডের ক্রিকেটারদের একাংশ দেশে ফিরে গেছেন। কেন উইলিয়ামসনরা দুবাইতে ছুটি কাটাচ্ছেন। টেস্ট দলের বাকি সদস্যরা সেখানে যোগ দিলে পুরো দল একসঙ্গে ঢাকায় পৌঁছাবে। 


আরও পড়ুন: ভারতকে কাঁদিয়ে ষষ্ঠবার বিশ্বচ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া


সিলেট থেকে সফর শুরু হওয়ায় ঢাকা পা রাখার পরদিন ম্যাচ ভেন্যুতে যাবে  নিউজিল্যান্ড। 


 ২৩ নভেম্বর থেকে বাংলাদেশ দলের অনুশীলন রাখা হয়েছে। এটি ২০২৩-২৫ বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ সাইকেলের প্রথম সিরিজ বাংলাদেশের।


জেবি/এসবি

শান্ত অধিনায়ক: নিউজিল্যান্ড সফরের দল ঘোষণা


ক্রীড়া প্রতিবেদক
🕐 প্রকাশ: ০৩:৪৬ পিএম,১লা ডিসেম্বর ২০২৩

Janobani Bangla NewsPaper

ছবি: সংগৃহীত

তিনটি ওয়ানডে ও তিনটি টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে ডিসেম্বরেই নিউজিল্যান্ড সফরে যাচ্ছে টিম টাইগাররা। 


এই সফরের জন্য দুই ফরম্যাটের স্কোয়াডেই ডাক পেয়েছেন এক সময়ের নিয়মিত ওপেনার সৌম্য সরকার ও আফিফ হোসেন ধ্রুব। আর ওয়ানডেতে নতুন মুখ লেগ স্পিনার রিশাদ হোসেন ও বাঁহাতি স্পিনার রাকিবুল হাসান। তবে টি-টোয়েন্টি দলেও রিশাদকে রাখা হয়েছে। ফেরানো হয়েছে তানভীর ইসলামকে।


দুই ফরম্যাটেই বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দেবেন নাজমুল হোসেন শান্ত। আর সহ- অধিনায়ক করা হয়েছে মেহেদী হাসান মিরাজকে। বিশ্বকাপ স্কোয়াড থেকে বাদ পড়েছেন নাসুম আহমেদ ও শেখ মেহেদী। ইনজুরির কারণে নিয়মিত অধিনায়ক সাকিব আল হাসান এই সফরে খেলতে পারছেন না। একই কারণে নেই সিনিয়ার মাহমুদউল্লাহ রিয়াদও।


বিশ্বকাপের আগে ঘরের মাঠে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তিন ওয়ানডে সিরিজ খেলেছিল বাংলাদেশ দল। সেই সিরিজেও দলে ছিলেন সৌম্য। কিন্তু সে ভাবে কিছু না করায় বিশ্বকাপ দল থেকে বাদ পড়েন। কিন্তু বিশ্বকাপের পর প্রথম সিরিজেই ডাক পেলো সৌম্য। এ সময়ে কোনো পঞ্চাশ ওভারের প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচ খেলেননি এ ব্যাটার। জাতীয় ক্রিকেট লিগে ৬ ম্যাচে ১১ ইনিংসে ৪৮.৪৪ গড়ে  করেছেন ৪৩৬ রান। এছাড়া লম্বা সময় পর আফিফ হোসেনকেও ফেরানো হয়েছে জাতীয় দলে। জাতীয় লিগে ৬ ম্যাচে তার রান কেবল ২৭৯।


স্কোয়াডে প্রথমবার সুযোগ পাওয়া রিশাদ গত মার্চে ও রাকিবুল জুলাইয়ে পঞ্চাশ ওভারের ক্রিকেট খেলেছেন। রিশাদ খেলেছেন ঢাকা লিগে। রাকিবুল এসিসি ইমার্জিং কাপে। বাঁহাতি এই স্পিনার ৪ ম্যাচে ৪.০৩ ইকোনমি ও ২৩ গড়ে নিয়েছিলেন ৭ উইকেট। ওই প্রতিযোগিতায় সৌম্য ৪ ম্যাচে শিকার করেছিলেন ৬ উইকেট। রিশাদ ঢাকা লিগে খেলেছিলেন আবাহনীর হয়ে। ২ ম্যাচে পেয়েছিলেন ৫ উইকেট। তার লিস্ট এ ক্যারিয়ার ততটাও উজ্জ্বল নয়। ৩ ম্যাচে পেয়েছেন ওই ৫ উইকেটই। রাকিবুল এদিকে বেশ এগিয়ে আছেন। ৪৪ ম্যাচে তার শিকার ৬৬ উইকেট।  

   

ওয়ানডে স্কোয়াডে জায়গা পাওয়া ক্রিকেটাররা:

নাজমুল হোসেন শান্ত (অধিনায়ক), তানজিদ হাসান তামিম, এনামুল হক বিজয়, তাওহীদ হৃদয়, মুশফিকুর রহিম, লিটন কুমার দাশ, আফিফ হোসেন ধ্রুব, সৌম্য সরকার, মেহেদী হাসান মিরাজ (সহ-অধিনায়ক), মোস্তাফিজুর রহমান, শরিফুল ইসলাম, তানজিম হাসান সাকিব, হাসান মাহমুদ, রিশাদ হোসেন ও রাকিবুল হাসান।


এদিকে টি-টোয়েন্টি দলে প্রথমবার ডাক পেয়েছেন পেসার তানজিদ হাসান সাকিব। তাছাড়া বাকিদের সবারই অভিষেক হয়েছে এই ফরম্যাটে। সৌম্য ও আফিফের সঙ্গে ফিরেছেন তানভীর। বাঁহাতি এ স্পিনার দেশের মাটিতে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এক টি-টোয়েন্টির পর আর সুযোগ পাননি।


টি-টোয়েন্টি স্কোয়াডে জায়গা পাওয়া ক্রিকেটাররা:

নাজমুল হোসেন শান্ত (অধিনায়ক), লিটন কুমার দাশ, রনি তালুকদার, তাওহীদ হৃদয়, শামীম হোসেন, আফিফ হোসেন ধ্রুব, সৌম্য সরকার, মেহেদী হাসান মিরাজ (সহ-অধিনায়ক), শেখ মাহেদী হাসান, মোস্তাফিজুর রহমান, শরিফুল ইসলাম, হাসান মাহমুদ, রিশাদ হোসেন, তানবীর ইসলাম ও তানজিদ হাসান সাকিব।


১৭ ডিসেম্বর প্রথম ওয়ানডে অনুষ্ঠিত হবে ডানেডিনে। পরের দুটি ওয়ানডে ২০ ও ২৩ ডিসেম্বর যথাক্রমে নেলসন ও নেপিয়ারে অনুষ্ঠিত হবে। তিনটি ওয়ানডেই শুরু হবে বাংলাদেশ সময় ভোর ৪টায়।


তিনটি টি-টোয়েন্টি হবে যথাক্রমে ২৭, ২৯ ও ৩১ ডিসেম্বর। প্রথম ম্যাচটি নেপিয়ারে হবে। পরের দুটি মাউন্ট মঙ্গানুইয়ে অনুষ্ঠিত হবে। প্রথম দুই টি-টোয়েন্টি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় দুপুর ১টা ১০ মিনিটে। শেষ ম্যাচ ভোর ৬টায় অনুষ্ঠিত হবে।

তিন ফরম্যাটেই সেরা পাঁচে বাবর আজম


ক্রীড়া ডেস্ক
🕐 প্রকাশ: ১২:৫৫ পিএম,১লা ডিসেম্বর ২০২৩

Janobani Bangla NewsPaper

ছবি: সংগৃহীত

বাবর আজম ওয়ানডে ব্যাটারদের র‍্যাংকিংয়ে শীর্ষ স্থান দখল করে ছিলেন বেশ লম্বা সময় ধরেই। সবচেয়ে বেশি সময় ধরে শীর্ষে থাকার রেকর্ডটা এখনো তার দখলেই। এমনকি এখনও তিন ফরম্যাটেই সেরা পাঁচ ব্যাটারের মধ্যে আছেন এই ব্যাটার। পাকিস্তানি এই ব্যাটারের প্রশংসা করেছেন এবার নাথান লায়ন।


অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ খেলবে পাকিস্তান দল এই ডিসেম্বরে। তিন ম্যাচের এই সিরিজের জন্য ইতোমধ্যেই ১৮ সদস্যের দল ঘোষণা করেছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। দলপতির পদ ছাড়লেও এই সফরে তিন সংস্করণের দলেই আছেন বাবর আজম।


এ ব্যাটারের বিপক্ষে খেলতে মুখিয়ে আছেন লায়ন। অজিদের এই তারকা স্পিনারের চোখে বিশ্বের সেরা ব্যাটারদের একজন বাবর আজম। এমন একজনের বিপক্ষে খেলাটা যেমন রোমাঞ্চকর তেমনি চ্যালেঞ্জও আছে বলে মনে করেন তিনি।


বাবর সম্পর্কে  লায়ন বলেন, 'বাবরের বিপক্ষে খেলতে পারাটা দারুণ ব্যাপার। তবে এটা অনেক বড় চ্যালেঞ্জও। আমার চোখে সে বিশ্বের সেরা ব্যাটারদের একজন, বিশেষ করে স্পিনের বিপক্ষে। তবে যেকোনো বোলারের বিপক্ষেই সে বিশ্বমানের একজন ব্যাটার।'


সদ্যই ওয়ানডে বিশ্বকাপ জিতে দেশে ফিরেছে অস্ট্রেলিয়া দল। তবে এই বিশ্বকাপজয়ী দলের সদস্য ছিলেন না অজি এই তারকা। কারণ সাদা বলের ক্রিকেটে খুব একটা সুযোগ পান না তিনি। তবে লাল বলে দলের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় দেখা যায় এই স্পিনার কে। 


বাবর রিজওয়ানদের বিপক্ষে আসন্ন টেস্ট সিরিজ নিয়ে লায়ন বলেন, 'সত্যি বলতে, আমি টেস্ট খেলার জন্য মুখিয়ে আছি। এই সিরিজ নিয়ে আমি বেশ রোমাঞ্চিত। আমি সবসময় পার্থে খেলতে আমি পছন্দ করি। পাকিস্তান দলের বিপক্ষে সিরিজে চ্যালেঞ্জ থাকবে, সবমিলিয়ে বেশ রোমাঞ্চকর একটা সিরিজ হবে।'

অধিনায়ক শান্তর পরে ফিরলেন মুশফিক


ক্রীড়া প্রতিবেদক
🕐 প্রকাশ: ১১:১৬ এএম,১লা ডিসেম্বর ২০২৩

Janobani Bangla NewsPaper

ছবি: সংগৃহীত

আগের দিন সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে বাংলাদেশ দলকে দারুণ একটি দিন উপহার দিয়েছিলেন অভিষেক অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত। মুশফিকুর রহিমের সঙ্গে জুটি গড়ে দলকে নিয়ে যাচ্ছিলেন বড় সংগ্রহের দিকে। কিন্তু চতুর্থ দিন ক্রিজে এসে স্থায়ী হতে পারেননি সেঞ্চুরিয়ান এ ব্যাটার। সাজঘরে ফেরেন দ্বিতীয় ওভারেই।


অপরপ্রান্তে দাঁড়িয়ে অবশ্য টেস্ট ক্যারিয়ারের ২৭তম ফিফটি তুলে নিয়েছেন মিষ্টার ডিপেন্ডেবল মুশফিকুর রহিম।


 


দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজের প্রথম টেস্টে সিলেটে নিউজিল্যান্ডের মুখোমুখি হয়েছে বাংলাদেশ দল। শুক্রবার (১ ডিসেম্বর) চতুর্থ দিন নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করছে টাইগার ব্যাটাররা। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত নাজমুল বাহিনীর লিড ২৭৮ রানের। মেহেদী হাসান মিরাজ ২৭ বলে ১৪ রান করে আর উইকেট কিপার ব্যাটার সোহান ৯ বলে ৭ রান করে অপরাজিত আছেন।

 

তৃতীয় দিন শেষে সংবাদ সম্মেলনে এসে মুমিনুল হক সিলেটের উইকেট বিবেচনায় ৪০০ রানের লিড আশা করেছিলেন। আশা করার যথেষ্ট কারণও ছিল। ক্রিজে ১০৪ রানে অপরাজিত ছিলেন ইনফর্ম টাইগার অধিনায়ক শান্ত। তাকে সঙ্গ দেয়া সিনিয়র ক্যাম্পেনার মুশফিক অপরাজিত ছিলেন ৪৩ রানে।

 

তবে চতুর্থ দিনের শুরুটা ভালো হয়নি লাল সবুজের দলের। দিনের দ্বিতীয় ওভারেই টিম সাউদির লেগ স্টাম্পের বাইরের বলে খোঁচা দিয়ে কট বিহাইন্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন নাজমুল শান্ত। এদিন তার ব্যাট থেকে আসে মাত্র ১ রান। ১৯৮ ডেলিভারিতে ১০ চারের মারে ১০৫ রানে থামে তার ইনিংস। মুশফিক ফেরেন ১১৬ বলে ৬৭ রান করে।


এর আগে দ্বিতীয় ইনিংসের শুরুতে দুই ওপেনার জাকির হাসান (১৭) ও মাহমুদুল হাসান জয় (৮) ব্যর্থ হলেও তৃতীয় উইকেটে দলের হাল ধরেন  দলপতি শান্ত ও মুমিনুল। শান্তর সঙ্গে ৯০ রানের জুটি গড়ে ব্যক্তিগত ৪০ রানের ইনিংস খেলে রান আউটের শিকার হন মুমিনুল। এরপর শান্ত ও মুশফিক জুটি গড়ে করেন ৯৮ রান।

 

সিলেট টেস্টের প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের করা ৩১০ রানের জবাবে ব্যাট করতে নামা কিউইরা করেছিল ৩১৭ রান।

টেস্টে অভিষেক অধিনায়ক হিসেবে শান্তর ইতিহাস


ক্রীড়া প্রতিবেদক
🕐 প্রকাশ: ০৭:৫১ পিএম,৩০শে নভেম্বর ২০২৩

Janobani Bangla NewsPaper

ছবি: সংগৃহীত

প্রথম দিনের ইনিংসটা দারুণ ভাবেই শুরু করেছিলেন অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত। তবে সেভাবে রাঙানো হয়নি ইনিংসটা। ফিলিপসের করা বলে বাজে এক শট খেলে সাজঘরে ফিরেছিলেন এই ব্যাটার। এবার দ্বিতীয় ইনিংসেই ঘুচালেন সেই আক্ষেপ। প্রথম বাংলাদেশি টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে অভিষেকে তিন অঙ্কের কৌটা পূর্ণ করলেন শান্ত। ক্যারিয়ারের পঞ্চম এই সেঞ্চুরি করতে শান্ত খেলেছেন ১৯২ বল।


তৃতীয় দিন শেষে নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ৬৮ ওভারে ৩ উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশের সংগ্রহ দাঁড়ায় ২১২ রান। সবমিলিয়ে টাইগারদের লিড এখন ২০৫ রানের। এখনও হাতে আছে মহামূল্যবান ৭ উইকেট।


বৃহস্পতিবার (৩০ নভেম্বর) ৭ রানে পিছিয়ে থেকে নিজের দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করা  স্বাগতিকরা কোনো উইকেট না হারিয়ে ১৯ রানে লাঞ্চে যায়। তবে তৃতীয় দিনের মধ্যাহ্ন-বিরতির পর তৃতীয় ওভারেই উইকেট হারিয়ে বসে বাংলাদেশ দল।


দলীয় ২৬ রানের মাথায় দুই ওপেনারকেই হারিয়ে বসে লাল-সবুজের দল। গেল দুই দিনের তুলনায় বৃহস্পতিবার উইকেটে বাড়তি টার্ন পেয়েছেন স্পিনাররা। তাতেই পরাস্ত হন জাকির হোসেন। ইনিংসের ১৩তম ওভারেই অ্যাজাজ প্যাটেলের অফ-স্ট্যাম্পের অনেকটা বাইরের বল জাকিরের প্যাডে আঘাত করে। এতে লেগ-বিফোরের ফাঁদে পড়েন এই টাইগার ওপেনার। ৩০ বলে ১৭ রান করে ফেরেন এই জাকির।


পরের ওভারেই আউট হয়েছেন আরেক ওপেনার জয়ও। সাউদির বলে স্ট্রেইট ড্রাইভ করেছিলেন শান্ত। কিন্তু দুর্ভাগ্যক্রমে তা সাউদির হাত স্পর্শ করে বল আঘাত করে নন-স্ট্রাইক প্রান্তের স্ট্যাম্পে। এ সময়ে পপিং ক্রিজের বাইরে ছিলেন এই ওপেনার। ফলে একরাশ হতাশা নিয়েই তাকে প্যাভিলিয়নে ফিরতে হয়। প্রথম ইনিংসে ৮৬ রান করা জয় এবার মাত্র ৮ রান করেই সাঁজ ঘরে ফেরেন।


শুরুর সেই ধাক্কা বেশ ভালোভাবেই সামাল দেয় টিম বাংলাদেশ । সেখান থেকে দলকে টেনে তোলার দায়িত্ব নেন অধিনায়ক শান্ত ও অভিঙ্গ মুমিনুল হক।


তবে ভুল কল দিয়ে রান আউট হয়েছেন মুমিনুলও। ডাউন দ্য উইকেটে এসে সোজা শট খেলেন এই  টাইগার ব্যাটার। ফিল্ডারের কাছে বল যাচ্ছে দেখেও দৌড় দেন তিনি। এ সময়ে শান্ত সাড়া না দেওয়ায় রান-আউটের ফাঁদে পড়েন মুমিনুল হক। এতে ভাঙে কার্যকরি ৯০ রানের এই জুটি।


এরপর দলীয় স্কোর বাড়ানোর দায়িত্ব পরে সিনিয়র ক্যাম্পেনার মুশফিক ও শান্তর ওপর। তাদের দূর্দান্ত ব্যাটিংয়ে ২০৫ রানের লিড নিয়ে তৃতীয় দিন শেষ করে বাংলাদেশ দল। তৃতীয় দিনের খেলা শেষ হওয়ার আগেই তিন অঙ্কের ম্যাজিক ফিগারে নাম লেখান দলপতি শান্ত। তৃতীয় দিন শেষে শান্ত ১০৪ ও মুশফিক ৪৩ রানে অপরাজিত আছেন।


এর আগে, প্রথম ইনিংসে টাইগারদের তিন শ’র বেশি পুঁজি এনে দিতে ৮৬ রানের দারুণ ইনিংস খেলেন ওপেনার জয়। এ ছাড়া ৩৭ করে রান যোগ করেন শান্ত ও মুমিনুল। শাহাদাত ২৪, মিরাজ ২০ ও সোহান খেলেন ২৯ রানের ইনিংস।


কিউইদের হয়ে প্রথম ইনিংসে ১০৪ রান করেন কেন উইলিয়ামসন। মিডল-অর্ডারে ড্যারেল মিচেল ৪১ ও ফিলিপস ৪২ রানের ইনিংস খেলেন। এ ছাড়া জেমিনসন ও সাউদির ব্যাট থেকে আসে ২৩ ও ৩৫ রানের ইনিংস।


প্রথম ইনিংসে ব্ল্যাক-ক্যাপসদের হয়ে পার্ট-টাইম অফ-স্পিনার ফিলিপস একাই তুলে নেন ৪ উইকেট। জেমিনসন ও অ্যাজাজ প্যাটেল দুটি করে উইকেট নেন। অন্যদিকে বাংলাদেশের হয়ে ৪ উইকেট নিয়েছেন স্পিনার তাইজুল ইসলাম। এ ছাড়াও গোল্ডেন হ্যান্ড বলে ক্যারিয়ার সেরা বোলিং করে ৪ রান দিয়ে মূল্যবান ৩ উইকেট নেন লিটল মাষ্টার খ্যাত মুমিনুল হক। আর একটি করে উইকেট শিকার করেন পেসার শরিফুল ইসলাম-মেহেদি হাসান মিরাজ ও নাইম হাসান।

প্রথমবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে উগান্ডা


ক্রীড়া ডেস্ক
🕐 প্রকাশ: ০৫:১৫ পিএম,৩০শে নভেম্বর ২০২৩

Janobani Bangla NewsPaper

ছবি: সংগৃহীত

প্রথমবারের মতো টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জায়গা করে নিয়েছে পূর্ব আফ্রিকার দেশ উগান্ডা। বাছাইপর্বের শেষ ম্যাচে রুয়ান্ডাকে ৯ উইকেটের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে দলটি। আর তাতেই কপাল পুড়ছে জিম্বাবুয়ে ও কেনিয়ার।


দিনের অপর  ম্যাচে একে কেনিয়ার মুখোমুখি হয়েছে জিম্বাবুয়ে। তবে উগান্ডার জয়ে ফলে এখন আর সুযোগ নেই তাদের। নামিবিয়া ও উগান্ডা- দুই দলেরই এখন সমান ১০ পয়েন্ট (নামিবিয়ার বাকি ১ ম্যাচ)। জিম্বাবুয়ে বা কেনিয়া-দুই দলের যে কোনও একটির এখন সর্বোচ্চ ৮ পয়েন্ট হতে পারে।


আরও পড়ুন: মুমিনুলের জোড়া আঘাত, অলআউট নিউজিল্যান্ড


বৃহস্পতিবার (৩০ নভেম্বর) গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ উগান্ডার জয়ের নায়ক তাদের বোলাররা। আলপেশ রামজানি, দীনেশ নাক্রানি, সিসেন্দু আর মাসাবার তোপে রুয়ান্ডা একদম সুবিধা করতে পারেনি। ১৮.৫ ওভার টিকলেও মাত্র ৬৫ রানে গুটিয়ে যায় রুয়ান্ডা।


আরও পড়ুন: গাড়িবহর নিয়ে মাগুরায় সাকিব আল হাসান


সহজ লক্ষ্য পেরুতে আগ্রাসী শুরু আনেন সিমন সিসাজি। রোনাক প্যাটেল ফিরলেও রজার মুকসাকে নিয়ে দ্রুত কাজ সেরে ফেলেন দলের জয় নিশ্চিত করে ২১ বলে অপরাজিত থাকেন ২৬ রানে। আগামী বছর টি-২০ বিশ্বকাপ হবে যুক্তরাষ্ট্র ও ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জে, খেলবে ২০ দল। উগান্ডার মধ্য দিয়ে ২০ দল চূড়ান্ত হয়ে গেল। 


জেবি/এসবি